আষাঢ় মানেই দিনভর বৃষ্টি। কখনও মুষলধারে, কখনও ঝিরঝিরিয়ে, কখনওবা টিপ টিপ করে। মঙ্গলবার (২২ জুন) সকাল থেকে রাজধানী ঢাকাসহ দেশের বিভিন্ন স্থানে শুরু হয়েছে তুমুল বর্ষণ। রাস্তা-ঘাট পানিতে তলিয়ে গেছে। এ প্রতিবেদন লেখার সময়ও রাজধানীতে গুঁড়িগুঁড়ি বৃষ্টি হচ্ছিল।

এদিকে আবহাওয়া অফিস বলছে, আজ দিনভর রাজধানীতে বৃষ্টি হতে পারে। সেই সঙ্গে আকাশ মেঘলা থাকতে পারে। রাজধানীর বাইরে ঢাকাসহ দেশের বিভিন্ন স্থানে সারাদিনই থেমে থেমে বৃষ্টি হতে পারে।

আবহাওয়াবিদ মো. আব্দুল হামিদ বলেন, ‘বর্ষকাল চলছে। তাই সকাল, বিকেল, দুপুর ও রাতে যেকোনো সময়ই বৃষ্টি দেখা দিতে পারে। আজ সকালে শুরু হওয়া বৃষ্টি দুপুর পর্যন্ত থেমে থেমে চলবে। দুপুরের পর একটু কমতে পারে। রোদের দেখা পাওয়ার সম্ভাবনা কম। বলা যেতে পারে সারাদিনই থেমে থেমে বৃষ্টি হতে পারে।’

আবহাওয়া অফিস জানিয়েছে, আগামী ২৪ ঘণ্টায় রংপুর, রাজশাহী, খুলনা, বরিশাল, চট্টগ্রাম, ময়মনসিংহ ও সিলেট বিভাগের কিছু কিছু জায়গায় অস্থায়ীভাবে দমকা হাওয়াসহ হালকা থেকে মাঝারি ধরনের বৃষ্টি বা বজ্রসহ বৃষ্টি হতে পারে। সেই সঙ্গে দেশের কোথাও কোথাও বিক্ষিপ্তভাবে মাঝারি ধরনের ভারী বর্ষণ হতে পারে।

আগামী ২৪ ঘণ্টায় সারাদেশে দিনের এবং রাতের তাপমাত্রা সামান্য বাড়তে পারে। সোমবার সন্ধ্যায় দেওয়া তাপমাত্রার তথ্যে বলা হয়েছে, আগের ২৪ ঘণ্টায় সর্বোচ্চ তাপমাত্রা রেকর্ড করা হয়েছে সৈয়দপুরে ৩৪ দশমিক ৫ ডিগ্রি সেলসিয়াস। এছাড়া ঢাকায় ছিল ৩১ দশমিক ৬ ডিগ্রি সেলসিয়াস।

গত ২৪ ঘণ্টায় (সোমবার সন্ধ্যা পর্যন্ত) সর্বোচ্চ বৃষ্টি হয়েছে চট্টগ্রাম বিভাগের মাইজদীকোর্ট এলাকায় ৭৮ মিলিমিটার। এর বাইরে ঢাকা, ময়মনসিংহ, সন্দীপ, কক্সবাজার, কুতুবদিয়া, মোংলাসহ বিভিন্ন অঞ্চলেও বৃষ্টিপাত হয়েছে। আগামী দুই দিনের আবহাওয়ার অবস্থায় বলা হয়েছে, বৃষ্টি বা বজ্রসহ বৃষ্টি কমতে পারে। আর পাঁচ দিনের পূর্বাভাসে আবহাওয়া পরিবর্তন হতে পারে বলে হয়েছে।

আবহাওয়ার সিনপটিক অবস্থায় বলা হয়েছে, মৌসুমি বায়ুর অক্ষের বর্ধিতাংশ উত্তর প্রদেশ, বিহার, পশ্চিমবঙ্গ ও বাংলাদেশের মধ্যাঞ্চল হয়ে আসাম পর্যন্ত বিস্তৃত রয়েছে। এর বর্ধিতাংশ উত্তর বঙ্গোপসাগরে অবস্থান করছে। মৌসুমি বায়ু বাংলাদেশের ওপর সক্রিয় এবং উত্তর বঙ্গোপসাগরে মাঝারি অবস্থায় রয়েছে।