1. bslbarta@gmail.com : BSL BARTA : Golam Rabbi
সিরাজগঞ্জে সরিষা ক্ষেতে মধু চাষে ব্যস্ত মৌচাষিরা। - বিএসএল বার্তা




সিরাজগঞ্জে সরিষা ক্ষেতে মধু চাষে ব্যস্ত মৌচাষিরা।

শাহিন রেজা সিরাজগঞ্জে রায়গঞ্জ উপজেলায়
  • প্রকাশিত সময় : শুক্রবার, ১৩ ডিসেম্বর, ২০১৯
  • ১৩২ বার পড়া হয়েছে

সিরাজগঞ্জে রায়গঞ্জ উপজেলায় মধু চাষিরা এখন সরিষার ক্ষেত থেকে মধু চাষে ব্যস্ত সময় পার করছেন।রায়গঞ্জ উপজেলার নলকা ইউনিয়নে মাঠের পর মাঠ সরিষার ফুলের হলুদ রঙ যেন হলুদ শাড়ি পরিধান করেছে।

চোখ মেললেই মন জুড়িয়ে যায়। এর মধ্যেই সরিষা ফুলের মধু সংগ্রহে ক্ষেতের পাশে পোষা মৌমাছির শত শত বাক্স নিয়ে হাজির হয়েছেন মৌচাষিরা।মৌচাষিরা সাধারণত পছন্দের একটি সরিষা ক্ষেতের পাশে খোলা জায়গায় চাক ভরা বাক্স ফেলে রাখেন। একেকটি বাক্সে ৮-১০টি মোম দিয়ে তৈরি মৌচাকের ফ্রেম রাখা হয়।প্রতিটি মৌ বাক্সের ভেতরে রাখা হয় রানি মৌমাছি। ফুল থেকে মৌমাছিরা মধু এনে বাক্সের ভেতরের চাকে জমা করে। বাক্সে একটি রানি মৌমাছি রাখা হয়৷

রানি মৌমাছির কারণে ওই বাক্সে মৌমাছিরা আসতে থাকে। চাকের বাক্সের মাঝখানের নিচে ছিদ্র করে রাখা হয়। সে পথ দিয়ে মৌমাছিরা আসা-যাওয়া করতে থাকে।

এসব বাক্সে পালিত মৌমাছি সরিষা ফুল থেকে মধু সংগ্রহ করে মৌ বাক্সে জমা করছে।আর এই মৌ বাক্সে জমা করা মধু সংগ্রহ করছেন। তিন কিলোমিটারের মধ্যে মধু সংগ্রহ করতে পারে নির্দেশ মতো এ মৌমাছিরা । সকাল ৯ টা থেকে বিকাল ৫ টা পযন্ত।

আর,মৌ চাষের মাধ্যমে মৌচাষিরা একদিকে যেমন আর্থিকভাবে লাভবান হচ্ছেন,অন্যদিকে দূর হচ্ছে বেকারত্ব। আর এই মধু দেশের বিভিন্ন স্থানসহ বিদেশেও বিক্রি হচ্ছে। সরিষা ফুলের মধু যেমন খাঁটি তেমনি সুস্বাদুও।

নলকা গ্রামের মৌচাষিরা ”শহিদুল ইসলাম বলেন,আমরা সরিষা ক্ষেতে বছরে ৪ মাস মধু আহরণ করে থাকি। অন্য ৮ মাস কৃত্রিম পদ্ধতিতে চিনি খাইয়ে মৌ মাছিদের রাখা হয়। ডিসেম্বর থেকে এপ্রিল পযন্ত সরিষা থেকে মধু আহরণের উপযুক্ত সময়। তখন জেলায় সর্বত্রই ভালো সরিষা ফুল ফোটে। তিনি আরো বলেন, আকার ভেদে একটি বাক্সে ২০ থেকে ৪০ কেজি পযন্ত মধু পাওয়া যায়। এখানে ১০০টি কলনি রয়েছে। আর এই প্রতিটি কলনি খরচ হয় ৮ থেকে ১০ হাজার টাকা।আর প্রতি কেজি মধু বিক্রি করা হয় ২৫০ থকে ৩০০টাকা। প্রতি কলনিতে লাভ হয় প্রায় ৫ হাজার টাকা।

রায়গঞ্জ উপজেলায় কয়েকটি মৌ চাষির দল রয়েছে তারা ,প্রায় ২০ লক্ষ টাকার মধু সংগ্রহ করে থাকেন এ মৌসুমে।
তবে চাষিদের অভাবে শুধু এ উপজেলায় লক্ষ লক্ষ টাকা মধু শুকিয়ে যাচ্ছে।

কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর এর মতে সরিষা ক্ষেতের পাশে মৌমাছির চাষ হলে সরিষার ফলন ১০% বৃদ্ধি পায়।তাই সরিষার ফলনও বেশি হওয়ার সম্ভাবনা থাকে। সরিষা ক্ষেত থেকে বিনা খরচে মধু সংগ্রহ লাভজনক ব্যবসা হয়ে দেখা দিয়েছে। এতে কৃষকের একদিকে মধু বিক্রি করে অর্থনৈতিকভাবে লাভবান হওয়ার সম্ভাবনা থাকে অন্যদিকে ক্ষেতে মধু চাষ করায় সরিষার ফলনও বৃব্ধি পাবে।




নিউজটি শেয়ার করুন...

Comments are closed.

এ জাতীয় আরো খবর..






















© All rights reserved © 2019 bslbarta.com
Customized By BSLBarta Team