1. bslbarta@gmail.com : BSL BARTA : Golam Rabbi
সিরাজগঞ্জে ৪৯০ হেক্টর জমিতে আগাম জাতের পেঁয়াজ চাষ - বিএসএল বার্তা




সিরাজগঞ্জে ৪৯০ হেক্টর জমিতে আগাম জাতের পেঁয়াজ চাষ

টি এম কামাল
  • প্রকাশিত সময় : মঙ্গলবার, ১০ ডিসেম্বর, ২০১৯
  • ৫৯ বার পড়া হয়েছে

সিরাজগঞ্জ জেলার ৯ উপজেলার কৃষকরা এ বছর রবি মৌসুমে ৪৯০ হেক্টর জমিতে আগাম জাতের পেঁয়াজ চাষ করছেন। ইতোমধ্যেই জেলার পেঁয়াজ চাষিরা পেঁয়াজ তুলে বিক্রী শুরু করেছেন এবং ভালো লাভ করছেন। কিন্তু চুরি আতঙ্কে রাত জেড়ে পেঁয়াজ ক্ষেত পাহারা দিতে হচ্ছে বলে জানিয়েছেন কৃষকরা।

জেলা কৃষি সম্প্রসারণ অফিস সূত্রে জানা গেছে, এ বছর ৪ ডিসেম্বর পর্যন্ত সিরাজগঞ্জ সদর উপজেলায় ৮৭ হেক্টর, চৌহালি উপজেলায় ১১২ হেক্টর, উল¬াপাড়া উপজেলায় ৬০ হেক্টর, তাড়াশ উপজেলায় ১০ হেক্টর, রায়গঞ্জ উপজেলায় ৫০ হেক্টর, কামারখন্দ উপজেলায় ৩৮ হেক্টর, বেলকুচি উপজেলায় ১৮ হেক্টর, কাজিপুর উপজেলায় ৭৫ হেক্টর ও শাহজাদপুর উপজেলায় ৪০ হেক্টর পেঁয়াজ চাষ হয়েছে।

তবে এখনো পেঁয়াজ লাগানো অব্যাহত রয়েছে। ইতোমধ্যেই এসব জমির পেঁয়াজ উঠতে শুরু করবে। আগামী আরো এক মাস এই পেঁয়াজ উঠবে। এ পরিমাণ জমির পেঁয়াজ উঠলে এলাকার চাহিদা পূরণ করেও কৃষকরা বাইরে বিক্রি করে অধিক লাভবান হবেন এবং পেয়াজের বাজার স্থিতিশীলও হবে বলে আশা করছেন কৃষি বিভাগ।

এ বিষয়ে জেলার শাহজাদপুর উপজেলার পোতাজিয়া ইউনিয়নের চর চিথুলিয়া গ্রামের পেঁয়াজ চাষি রেজাউল করিম সরকার, টেক্কা সরকার, সাদ্দাম হোসেন, চাঁদ ফকির, বাদল সরকার, জয়নাল সরকার, আনিছ সরকার ফজর সরকার জানান, তাদের গ্রামের প্রায় ১২ বিঘা জমিতে এ বছর আগাম জাতের পেঁয়াজ চাষ হয়েছে। বাজারে পেঁয়াজের দাম বেশি থাকায় তারা উচ্চ মূল্যে বেছন কিনে বপন করেছেন।

বিঘা প্রতি তাদের ৪০ হাজার টাকা থেকে ৫০ হাজার টাকা খরচ হয়েছে। তারা জানান, ফলন ভালো হলে প্রতি বিঘা পেঁয়াজে ৭০ থেকে ৮০ হাজার টাকা লাভ হবে। তারা আরো বলেন, সাধারণত এ এলাকার জমি থেকে পেঁয়াজ চুরি হয় না।

কিন্ত এ বছর পেঁয়াজের দাম বেশি হওয়ায় ও বাজারে ব্যাপক চাহিদা থাকায় চুরির আশঙ্কা করছেন। একই সাথে গরু-ছাগলের আক্রমণ থেকে পেঁয়াজ রক্ষায় তারা এ বছর বেশির ভাগ পেঁয়াজের জমিতে নেট দিয়ে ঘিরে রেখেছেন। এ ছাড়া পালা করে রাতে ও দিনে পেঁয়াজ ক্ষেত পাহারা দিচ্ছেন।

এ বিষয়ে তাড়াশ উপজেলার বামুনগাড়া গ্রামের পেঁয়াজ চাষি তফের আলী, নূরুল ইসলাম ও ধারাবারিষা গ্রামের কফিল উদ্দিন জানান, বাজারে প্রতি কেজি পেঁয়াজ ২৬০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে। এতে তারা ভালো লাভের আশা করছেন। কিন্তু রাতে জমির পেঁয়াজ চুরির আশঙ্কায় তারা শঙ্কিত হয়ে পড়েছেন।

ফলে তারা রাত জেগে ক্ষেত পাহারা দিচ্ছেন। যাদের জমি বাড়ি থেকে বেশ দূরে তারা দিনেও পাহারা দিচ্ছেন। এ বিষয়ে তাড়াশের নাদোসৈয়দপুর গ্রামের শারমিন খাতুন জানান, ক্ষেত থেকে একটু আড়াল হলেই পেঁয়াজ চুরি হচ্ছে। ধামাইচর গ্রামের প্রভাষক আবু হাশিম খোকন জানান, আগে কখনো পেঁয়াজ চুরির ঘটনা ঘটেনি। আগে কৃষকরা পেঁয়াজের পাতা ক্ষেতেই ফেলে দিত।

এখন পেঁয়াজের পাতাও ১০০ টাকা কেজি দরে বিক্রি হচ্ছে। তাই পেঁয়াজ চুরি ঠেকাতে সবাই ক্ষেত পাহারা দিচ্ছে। সিরাজগঞ্জ সদর উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা মোঃ রোস্তম আলী জানান, পেঁয়াজের দাম বেশি হওয়ায় সিরাজগঞ্জের অনেক চাষিও এ বছর পেঁয়াজ চাষ করেছেন এবং বেশ লাভবান হবে বলে তিনি আশাবাদ ব্যক্ত করেন।

বিএসএল বার্তা / ওয়াদুদ




নিউজটি শেয়ার করুন...

Comments are closed.

এ জাতীয় আরো খবর..






















© All rights reserved © 2019 bslbarta.com
Customized By BSLBarta Team