1. bslbarta@gmail.com : BSL BARTA : Golam Rabbi
কেশবপুরে শালিস বৈঠকের হামলায় আহত মকছেদ আলীর মৃত্যু : ১৮ জনের নামে মামলা - বিএসএল বার্তা




কেশবপুরে শালিস বৈঠকের হামলায় আহত মকছেদ আলীর মৃত্যু : ১৮ জনের নামে মামলা

আজিজুর রহমান, কেশবপুর (যশোর) প্রতিনিধিঃ
  • প্রকাশিত সময় : মঙ্গলবার, ৩ ডিসেম্বর, ২০১৯
  • ৫৩ বার পড়া হয়েছে

কেশবপুরে মামলা তুলে নিতে অসিকার করায় শালিসী বৈঠাকে স্থানীয় চেয়ারম্যান ও মেম্বরের প্রকাশ্য মদদে আসামীরা বাদী ও বাদীর ভাইকে সন্ত্রাসী কায়দায় মারপিট করলে চিকিৎসাধিন অবস্থায় বাদীর ভাই মকছেদের মৃত্যু হয়। এই ঘটনায় নিহতের ভাই মোকাম সরদার বাদী হয়ে গত ২৪-১১-১৯ তারিখ বিদ্যানন্দকাটি ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আমজাদ হোসেনকে প্রধান ও সাবেক মেম্বর হাশেম আলীকে ২নং আসামী করে ১৮ জনের নামে যশোর বিজ্ঞ সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট (কেশবপুর অঞ্চল) এর আদালতে হত্যা মামলা দায়ের করেছে। যার মামলা নং মিস-০৫/১৯।

বিজ্ঞ ম্যাজিস্ট্রেট মামলাটি ১০ কার্য্যদিবসের মধ্যে প্রতিবেদন দাখিল করার জন্য কেশবপুর থানার অফিসার ইনচার্জ কেশবপুর থানাকে নির্দেশ দেন। চেয়ারম্যান ও সাবেক মেম্বর ছাড়া বাকী আসামীরা হলেন উপজেলার জাহানপুর গ্রামের মঈনউদ্দিন সরদার,নকিম উদ্দীন,শহিদুল,মহিদুল,সাইফুল শরিফুল,আল আমিন, আকছেদ সরদার, মোঃ আলমগীর, মোঃ বিল্লাল, মহাসিন, মোঃ আতিয়ার, ইজ্জত আলী, আকবার আলী, মোঃ আক্তার ও আব্বাস আলী।

উল্লেখ্য, গত ০৮-১০-১৯ তারিখ রাত অনুমান ১০ টার দিকে উপজেলার পরচক্রা গ্রামের মাঝের পাড়া তিন রাস্তার মোড়ে চেয়ারম্যান আমজাদ হোসেন ও সাবেক মেম্বর হাশেম আলীসহ এলাকার গন্যমান্য ব্যক্তিবর্গদের উপস্থিতিতে পরচক্রা গ্রামের মৃত তায়েজ উদ্দীন সরদারের ছেলে মোকাম ও নিহত ভাই মকছেদসহ অন্যান্য ভাই ও উপরক্ত আসামীদের নিয়ে জমিজমা সংক্রান্ত বিরোধ মিমাংসার শালিসী বৈঠাক বসে। শালিসের এক পর্যায়ে চেয়ারম্যান আমজাদ ও আসামীরা একযোগে আসামীদের বিরুদ্ধে করা ১৪৪ ধারা মামলা ( নং-পি-২৫৪/১৯) তুলে নিতে চাপ সৃষ্টি করে। চাপের এক পর্যায়ে বাদী মোকাম সরদার ,ভাই মকছেদসহ তার পরিবারের লোকজন মামলা তুলে নিতে অশিকার করায় চেয়ারম্যার ও মেম্বর হুকুমে উল্লেখিত আসামীরা প্রকাশ্যে ধারালো অস্ত্র ও লাঠি-সোঠা দিয়ে মোকাম ও মকছেদকে কুপিয়ে ও পিটিয়ে রক্তাক্ত জখম করে। স্থানীয় লোকজন তাদেরকে উদ্ধার করে প্রথমে কেশবপুর হাসপাতালে ভর্তি করান। পরবর্তিতে মকছেদের অবস্থার অবনতি হলে ১৪ নভেম্বর তাকে যশোর কুইন্স প্রাঃ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। অবস্থার অবনতি হওয়ায় সেখান থেকে তাকে ১৫ নভেম্বর যশোর ২৫০ শয্যা হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। পরে উন্নত চিকিৎসার জন্য ডাক্তাররা ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করার পরামর্শ দিলে আহত মকছেদকে বাড়ীতে আনা হলে ২ দিন পর তার মৃত্যু হয়।

নিহতের ভাই,মোকাম সাংবাদিকদের জানান, তার ভাই মকছেদকে শালিসের নামে পূর্ব-পরিকল্পিতভাবে হত্যা করা হয়েছে। স্থানীয়ভাবে বিচার না পেয়ে আসামীদের বিরুদ্ধে আদালতে হত্যা মামলা করা হয়েছে। তিনি ভাই হত্যাকারীদের অবিলম্বে গ্রেফতার ও ফাঁসি চান।

এব্যাপারে মামলার ১নং আসামী চেয়ারম্যান আমজাদ হোসেনর বক্তব্য নেওয়ার জন্য তার ফোনে যোগাযোগ করা হলে তিনি এই প্রতিনিধিকে বলেন, আমি একটি মিটিং করছি, পরে কথা বলব।

মামলার বিষয়ে জানতে চাইলে কেশবপুর থানার অফিসার ইনচার্জ মোঃ আবু সাঈদ জানান, মামলাটি এখনও পর্যন্ত তদন্তধীন রয়েছে।

বিএসএল / জি এস




নিউজটি শেয়ার করুন...

Comments are closed.

এ জাতীয় আরো খবর..






















© All rights reserved © 2019 bslbarta.com
Customized By BSLBarta Team