1. bslbarta@gmail.com : BSL BARTA : Golam Rabbi
নাশকতা মামলা ও অনুপ্রবেশকারী স্বেচ্ছাসেবকলীগ নেতা সবুজ বাহিনীর মারপিটে আ'লীগ কর্মী নিহত - বিএসএল বার্তা




নাশকতা মামলা ও অনুপ্রবেশকারী স্বেচ্ছাসেবকলীগ নেতা সবুজ বাহিনীর মারপিটে আ’লীগ কর্মী নিহত

শেরপুর প্রতিনিধি, বগুড়া
  • প্রকাশিত সময় : বুধবার, ১৯ আগস্ট, ২০২০
  • ৩৭৮ বার পড়া হয়েছে

গত ৩দিন ধরে বগুড়া শজিমেক হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় ১৮ আগস্ট মঙ্গলবার সকালে অবস্থায় মারা গেলেন আওয়ামীলীগ কর্মী আব্দুল হালিম(২৬)। মৃত আব্দুল হালিম উপজেলার গাড়িদহ মধ্যপাড়া গ্রামের হাফিজার রহমানের ছেলে। এ ঘটনায় থানায় মামলা দায়েরের প্রস্তুতি চলছে

গত ১৪ আগস্ট বিকালে বগুড়ার শেরপুর শহর স্বেচ্ছাসেবকলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক সবুজ বাহিনীর মারপিটের শিকার হয়ে গুরুতর আহত অবস্থায় হাসপাতালে ভর্তি করে আওয়ামীলীগ কর্মীর আব্দুল হালিমকে।

স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, উপজেলার গাড়িদহ ইউনিয়নে কোয়ালিটি ফিড কোম্পানী এলাকায় গাড়িদহ মধ্যপাড়া গ্রামের জহুরুল ইসলামের ছেলে সাখাওয়াত হোসেন সবুজের নেতৃত্বে একই ইউনিয়নের রহমান নগর গ্রামের ফজলুল হকের ছেলে মুহায়মিনু, বাংড়া গ্রামের মোফাজ্জল হোসেনের ছেলে কাওছার ও গাড়িদহ মধ্যপাড়া গ্রামের মকবর আলীর ছেলে শাহিনসহ বেশ কয়েকজন দীর্ঘদিন ধরে কোয়ালিটি ফিড ও গাড়িদহ সিএনজি স্ট্যান্ড থেকে অবৈধভাবে চাঁদা আদায় করে আসছিল। এক পর্যায়ে একই এলাকার হাফিজার রহমানের ছেলে আওয়ামীলীগ কর্মী আব্দুল হালিম তাদেরকে চাঁদা তুলতে বাঁধা দেয়। এ ঘটনার প্রেক্ষিতে গত ১৪ আগস্ট শুক্রবার বিকেলে কোয়ালিটি ফিড কেম্পিানীর পাশে জামুন্না স্যানাপাড়া এলাকায় আওয়ামীলীগ কর্মী আব্দুল হালিমকে একা পেয়ে শেরপুর শহর স্বেচ্ছাসেবকলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক সাখাওয়াত হোসেন সবুজের নেতৃত্বে দেশীয় অস্ত্রে একদল সন্ত্রাসী বাহিনীর তার উপর হামলা করে। এতে হালিমের ডান হাতের ৫টি আঙুল কেটে ও ডান পা ভেংগে যায়। বেদম মারপিট করে গাড়িদহ বাসষ্ট্যান্ড এলাকায় তাকে ফেলে রেখে চলে যায় সন্ত্রাসীরা। পরে স্থানীয়রা আহত অবস্থায় হালিমকে উদ্ধার করে বগুড়া শজিমেক হাসপাতালে চিকিৎসার জন্য ভর্তি করে।

গত ৩দিন ধরে চিকিৎসাধীন অবস্থায় ১৮ আগস্ট মঙ্গলবার সকালে আওয়ামীলীগ কর্মী আব্দুল হালিম মারা যায়।

শেরপুর শহর স্বেচ্ছাসেবক লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক সাখাওয়াত হোসেন সবুজ বিগত ৩ বছর আগে ছাত্রদল থেকে অনুপ্রবেশ করে এলাকায় বিভিন্ন শিবির কর্মীদের নিয়ে ত্রাসের রাজত্ব কায়েম করে আসছে। সবুজের বিরুদ্ধে বেশ কয়েকটি নাশকতা মামলা রয়েছে। তবে সবুজ ইউনিয়নের বাসিন্দা হয়ে কিভাবে শহর স্বেচ্ছাসেবকলীগে সাংগঠনিক সম্পাদকে স্থান পায় অনেকের মনে এই প্রশ্ন। ওইসব অনুপ্রবেশকারীদের বিরুদ্ধে বিভিন্ন অপকর্মের অভিযোগও রয়েছে। এ নিয়ে সচেতনমহলে নানা ধরনের প্রশ্নের জন্ম দিয়ে এলাকায় মিশ্র প্রতিক্রিয়া দেখা দিয়েছে।

এ ব্যাপারে শেরপুর থানার অফিসার ইনচার্জ মো. মিজানুর রহমান জানান, ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছি, তবে এলাকাটি শেরপুর থানার অর্ন্তভূক্ত নয় বলে তিনি দাবী করেন।

এ প্রসঙ্গে শাহজাহানপুর থানার অফিসার ইনচার্জ আজিম উদ্দীন বলেন, বিষয়টি জানা নাই, তবে অভিযোগ দিলে আইনী ব্যবস্থা নেয়া হবে।




নিউজটি শেয়ার করুন...

Comments are closed.

এ জাতীয় আরো খবর..






















© All rights reserved © 2019 bslbarta.com
Customized By BSLBarta Team