1. bslbarta@gmail.com : BSL BARTA : Golam Rabbi
প্রশাসনকে বৃদ্ধাঙ্গুলি দেখিয়ে শেরপুরে রেজিষ্ট্রি অফিস এলাকায় আবারও বসছে বাজার - বিএসএল বার্তা




প্রশাসনকে বৃদ্ধাঙ্গুলি দেখিয়ে শেরপুরে রেজিষ্ট্রি অফিস এলাকায় আবারও বসছে বাজার

আব্দুর রাজ্জাক বগুড়া প্রতিনিধি
  • প্রকাশিত সময় : সোমবার, ২০ জুলাই, ২০২০
  • ৪০ বার পড়া হয়েছে

বগুড়ার শেরপুরে মহামারী করোনার সংক্রমণ ঠেকাতে প্রশাসনের পক্ষ থেকে নানা ধরনের উদ্যোগ নেয়া হয়। বিশেষ করে হাট বাজারে সামাজিক দূরত্ব নিশ্চিত করতে শহরের রেজিষ্ট্রি অফিস এলাকাস্থ বাজারটি পাশের হাটখোলার মধ্যে স্থানান্তরের সিদ্ধান্ত নেয় উপজেলা প্রশাসন। সেই সিদ্ধান্ত অনুযায়ী প্রায় মাসখানেক ধরে ওই জায়গায় বাজার বসানো হয়। সকল স্বাস্থ্যবিধি মেনে বাজারে আসা ক্রেতা-বিক্রেতাগণ কেনাকাটা করছিলেন। এতে করে সবার মাঝেই স্বাভাবিক স্বস্থি ফিরে আসে। কিন্তু বিগত কয়েকদিন ধরে দেখা যাচ্ছে এর ভিন্ন চিত্র। প্রশাসনের সিদ্ধান্তকে বৃদ্ধাঙলি দেখিয়ে রেজিষ্ট্রি অফিস এলাকায় আবারও বাজার বসানো শুরু হয়েছে। স্থানীয় একটি প্রভাবশালী মহলের স্বার্থে এখানে বাজার বসানো হয়েছে। সেখানে সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখান কোন চিহ্ন নেই। এমনকি জায়গা সংকটের কারণে গাদাগাদি করে কেনাকাটা করতে বাধ্য হচ্ছেন সাধারন ক্রেতা।

এ অবস্থায় মানা হচ্ছে না কোন স্বাস্থ্যবিধিও। ফলে করোনা সংক্রমণের ঝুঁকি বাড়ছে বলে জানান স্থানীয় জনসাধারণ। সরেজমিনে গিয়ে দেখাযায়, পৌরশহরের রেজিষ্ট্রি অফিসে সমানের সড়কের দু’পাশে প্রতিদিন সকাল থেকে দুপুর পর্যন্ত বাজার বসছে। কয়েক’শ দোকানি হরেক রকমের পসরা সাজিয়ে নিয়ে বসে আছেন। স্বাস্থ্যবিধি মেনে দোকান খোলার দিকনির্দেশনা থাকলেও অনেক দোকানদার তা মানছেননা। এমনকি বাজারে আসা অধিকাংশ মানুষই মাস্ক পড়েন নি। গা ঘেষাঘেষি করে কেনাকাটায় ব্যস্ত সময় পার করছেন ক্রেতা-বিক্রেতারা। সরকারি নির্দেশনা না মেনে এভাবে বাজারটি চলতে থাকলে করোনা সংক্রমণ ছড়িয়ে পড়ার আশঙ্কা করছেন এলাকার সচেতন মহল। তাদের অভিযোগ, করোনা দুর্যোগের শুরু থেকে স্থানীয় উপজেলা প্রশাসন ও আইন প্রয়োগকারী সংস্থার কঠোর তৎপরতায় বাজার নিয়ন্ত্রণে ছিল। সবাই সরকারি নির্দেশনা মেনেই বাড়ি থেকে বের হতেন। কিন্তু কিছুদিন ধরে প্রশাসনের মধ্যে শিথিলতা ভাব লক্ষ্য করা যাচ্ছে। এমনকি তাদের রহস্যজনক ভূমিকার কারণে আবার সেই পুরণো চিত্রই দেখা মিলছে। সামাজিক দূরত্ব না মেনে বাজারটিতে এভাবে জনসমাগম হওয়ার কারনে করোনার সংক্রমণ আরও বেড়ে যাওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে বলে শঙ্কা প্রকাশ করেন তারা।

বিষয়টি সম্পর্কে জানতে চাইলে শেরপুর নাগরিক স্বার্থ সংরক্ষণ কমিটির সভাপতি ও সাপ্তাহিক আজকের শেরপুর পত্রিকার সম্পাদক/প্রকাশক আলহাজ্ব মুনসী সাইফুল বারী ডাবলু জানান, মানুষের নিত্য প্রয়োজনীয় পণ্য কেনাকাটার জন্য নির্ধারিত সময়ের জন্য বাজার বসার অনুমতি রয়েছে। সেটি কোন জায়গায় বসলো সেটি বিবেচ্য বিষয় নয়। তবে মহামারী করোনা সংক্রমণ ঠেকাতে হাট-বাজারগুলো অবশ্যই সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখতে হবে। অন্যথায় প্রাণঘাতী এই ভাইরাসটি ছড়ার শঙ্কার কথা জানিয়ে নাগরিক স্বার্থ সংরক্ষণ কমিটির এই সভাপতি হাট-বাজারগুলোতে সরকারি নির্দেশনা ও স্বাস্থ্যবিধি কার্যকর করার দাবি জানান।

উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা লিয়াকত আলী সেখ বলেন, সরকারি নির্দেশনা অনুযায়ী সামাজিত দূরত্ব নিশ্চিত করতেই রেজিষ্ট্রি অফিসের বাজারটি হাটের মধ্যে স্থানান্তর করা হয়েছে। কিন্তু তাদের সিদ্ধান্ত উপেক্ষা করে রেজিষ্ট্রি অফিস এলাকায় আবারও বাজার বসানো হলে আইন অনুযায়ী ব্যবস্থা নেয়া হবে। সরকারি নির্দেশনা বাস্তবায়ন ও স্বাস্থ্যবিধি ভঙকারীদের বিরুদ্ধে প্রয়োজনে ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনা করা হবে বলেও তিনি জানান।

 




নিউজটি শেয়ার করুন...

Comments are closed.

এ জাতীয় আরো খবর..






















© All rights reserved © 2019 bslbarta.com
Customized By BSLBarta Team