1. bslbarta@gmail.com : BSL BARTA : Golam Rabbi
বগুড়ার শেরপুরে করোনায় প্রশাসনের শর্ত মানছেনা মার্কেট ব্যবসায়ীরা - বিএসএল বার্তা




বগুড়ার শেরপুরে করোনায় প্রশাসনের শর্ত মানছেনা মার্কেট ব্যবসায়ীরা

শেরপুর প্রতিনিধি
  • প্রকাশিত সময় : রবিবার, ১০ মে, ২০২০
  • ১৩৪ বার পড়া হয়েছে
dav

করোনা ভাইরাস বিস্তার রোধে সারা দেশের বেশির ভাগ জেলাতেই মার্কেট ব্যবসায়ীরা ব্যবসা বন্ধ রাখার ঘোষনা দিলেও বগুড়ার শেরপুর উপজেলা প্রশাসনের সাথে আলোচনা করে শর্ত সাপেক্ষে সকাল ১০ টা থেকে বিকেল ৪ টা পর্যন্ত মার্কেট খোলার সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে। অথচ মার্কেট খোলার প্রথম দিনেই শর্ত ভঙ্গ করেছে মার্কেট ব্যবসায়ীরা। এতে করে করোনা বিস্তারের ঝুঁকি বাড়ছে।

১০ই মে রবিবার বেলা ১১ টার দিকে শেরপুরের মার্কটগুলো ঘুরে দেখা যায়, রাবেয়া কমপ্লেক্সর মোবাইল মার্কেট, জাহানারা কমপ্লেক্স, মতিউর রহমান মার্কেট, মোহাম্মাদ আলী কমপ্লেক্স, শেরপুর প্লাজা, শেরশাহ নিউ মার্কেট, উত্তরা প্লাজা, ডক্টরস কমপ্লেক্স, সৈয়দা কমপ্লেক্স ও ডক্টর কমপ্লেক্সর বর্ধিত অংশ জুতার দোকান গুলতে উপচে পড়া মানুষের ভির। গয়ের উপর গা লাগিয়ে কেনা কাটা করছে তারা। বেশীর ভাগ মানুষের মুখে নেই মাস্ক। মার্কেটের গেটে পরীক্ষা করা হচ্ছেনা তাপমাত্রা। গেটের সামনে সাবান ও পানীর ব্যবস্থা থাকলেও তদারকি করার কেউ না থাকায় ব্যবহার করছে না কেউই।

অথচ গত ৯ মে মার্কেট মালিক ব্যবসায়ী সমিতির সাধারণ সম্পাদকদের নিয়ে বৈঠক করে দোকানপাট ও শপিংমলগুলো সকাল ১০ টা থেকে বিকাল ৪ টা পর্যন্ত খোলা রাখা, শপিংমলসমূহের প্রবেশমুখ ক্রেতাদের জন্য হ্যান্ডস্যানিটাইজার রাখা, মাস্ক পরিধান ব্যতীত কোন ক্রেতাকে দোকানে প্রবেশ করতে না দেওয়া, সকল বিক্রেতা, দোকান কর্মচারিকে মাস্ক ও হ্যান্ড গ্লভস পরিধান করা, প্রতিটি শপিংমলের সামনে সতর্কবাণী “স্বাস্থ্য বিধি না মানলে, মৃত্যু ঝুঁকি আছে” সম্বলিত ব্যানার টানানো, প্রবশমুখে ক্রেতাদের তাপমাত্রা মাপার ব্যবস্থা রাখতে হবে। কোন ক্রেতার শরীরের তাপমাত্রা স্বাভাবিকের চেয়ে বেশি হলে তাকে শপিংমলে ঢোকা থেকে বিরত রাখা, সামাজিক ও শারিরিক দূরত্ব নিশ্চিত করতে ক্রেতাদের ১ মিটার ৪ ফুট দূরত্বে দাড়াতে বলা প্রয়োজনে দাগ টেনে দেয়া, শপিংমল ক্রেতার সংখ্যা সীমিত রাখা, গণশৗচাগার পর্যাপ্ত সাবান পানি, ময়লা ফলার ক্যান রাখা এবং দাকান চেয়ার সংখ্যা সীমিত করতে হবে এবং চেয়ারগুলোর মাঝখানে ৪ ফুট দুরত্ব নিশ্চিত করার শর্ত সাপেক্ষে মার্কেট খোলার সিদ্ধান্ত নিয়েছিল উপজেলা প্রশাসন। প্রশাসনের সেই শর্তগুলো উপেক্ষা করে চলছে মার্কেটের কেনা কাটা। এত করে করোনা বিস্তারের ঝুঁকি বাড়ার সম্ভাবনা রয়েছে।

এ ব্যাপারে শেরশাহ নিউ মার্কেট ব্যবসায়ী সমিতির সাধারণ সম্পাদক মুঞ্জরুল আলম মুঞ্জু বলেন, উপজলা প্রশাসনের সকল শর্ত বাস্তবায়নের জন্য লোক নিয়োগ করা হয়েছে। তাকে সঠিকভাবে দায়িত্ব পালন করার জন্য বলা হয়েছে।

এ ব্যাপারে উত্তরা প্লাজা মার্কেট ব্যবসায়ী সমিতির সাধারণ সম্পাদক পিয়ার হাসন পিয়ার বলেন, এখানে তাপমাত্রা মাপার যন্ত্র আনা হয়নি। তব খুব দ্রুত ব্যবস্থা করা হবে।

এ ব্যাপারে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোঃ লিয়াকত আলী সেখ বলেন, সরকারি আদেশ যদি কোন ব্যবসায়ী না মানে তাহলে সবাইকে আইনের আওতায় আনা হবে এবং দষ্টান্তমূলক শাস্তি প্রদান করা হবে।




নিউজটি শেয়ার করুন...

Comments are closed.

এ জাতীয় আরো খবর..






















© All rights reserved © 2019 bslbarta.com
Customized By BSLBarta Team