প্রেমে সাড়া না পেয়ে স্কুলছাত্রীকে অপহরণের পর ধর্ষণের অভিযোগে মামলা

98

বগুড়া ধুনট উপজেলায় প্রেমে সাড়া না পেয়ে স্কুলছাত্রীকে রাস্তা থেকে অপহরণের পর ধর্ষণের অভিযোগ উঠেছে রাকিব হাসান (৩৬) নামে এক বখাটের বিরুদ্ধে মামলা হয়েছে।

গত রবিবার দুপুরে স্কুলছাত্রীর শারীরিক পরীক্ষার জন্য বগুড়া শহীদ জিয়াউর রহমান মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে ও ২২ ধারা জবানবন্দি রেকর্ডের জন্য বগুড়া আদালতে পাঠায় পুলিশ।

এর আগে গত শনিবার রাতে ধর্ষণের শিকার স্কুলছাত্রীর মা বাদী হয়ে রাকিব হাসানের বিরুদ্ধে একটি মামলা দায়ের করেন। অভিযুক্ত বখাটে রাকিব উপজেলার সুলতানহাটা গ্রামের আমির হোসেনের ছেলে।

গত ২৯ অক্টোবর সকালে রাস্তা থেকে তুলে নিয়ে নিজের বাড়ির একটি ঘরে আটক রেখে স্কুলছাত্রীকে ধর্ষণ করেছে সে।

মামলা সূত্রে জানা গেছে, ধর্ষণের শিকার মেয়েটি (১৫) স্থানীয় একটি উচ্চ বালিকা বিদ্যালয়ের নবম শ্রেণির শিক্ষার্থী। তাকে প্রেমের প্রস্তাব দেয় বখাটে রাকিব। কিন্ত প্রেমে সাড়া না পেয়ে স্কুলছাত্রীকে উত্ত্যক্ত করে। এ অবস্থায় ৩ অক্টোবর সকালের দিকে ওই স্কুলছাত্রী বাড়ি থেকে আড়কাটিয়া বাজারে প্রাইভেট পড়ার উদ্দ্যেশে রওনা হয়। এ সময় আড়কাটিয়া ইছামতি নদীর সেতুর উত্তর পাশে পাকা রাস্তা থেকে রাকিব ওই স্কুলছাত্রীকে সিএনজিচালিত অটোরিকশায় অপহরণ করে বগুড়ার গাবতলী উপজেলা এলাকায় নিয়ে যায়। সেখানে নিয়ে স্কুলছাত্রীর নিকট থেকে জোরপূর্বক বিয়ের কাবিন (রেজিস্ট্রি) নামায় স্বাক্ষর ও টিপসই নেয়। পরে তাকে দুপুর ২টার দিকে আড়কাটিয়া বাজার এলাকায় রেখে চলে যায় রাকিব হাসান।

সম্মানের ভয়ে স্কুলছাত্রী এ বিষয়টি প্রকাশ করেনি। এ অবস্থায় ২৯ আক্টোবর সকালের দিকে ওই স্কুলছাত্রী আড়কাটিয়া বাজার থেকে প্রাইভেট পড়ে বাড়ির দিকে যাওয়ার পথে রাকিব হাসান একই স্থান থেকে আবারো স্কুলছাত্রীকে অপহরণ করে নিজ বাড়িতে নিয়ে যায়। পরে সেখানে বাড়ির একটি ঘরে আটকে রেখে স্কুলছাত্রীকে ধর্ষণের পর বাড়ি থেকে তাড়িয়ে দেয়। ধর্ষণের ঘটনায় অভিযুক্ত রাকিব এখন পলাতক।

ধুনট থানার এসআই মামলার তদন্ত কর্মকর্তা প্রদীপ কুমার জানান, স্কুলছাত্রীকে ধর্ষণের অভিযোগে করা মামলার আসামি রাকিব হাসানকে গ্রেপ্তারের জন্য অভিযান চলছে। ধর্ষণের শিকার স্কুলছাত্রীর শারীরিক পরীক্ষার শেষে আদালতে জবানবন্দি রেকর্ড করা হয়েছে।