রাজু আহম্মেদ,গাজীপুর থেকেঃ গাজীপুর মেট্রোপলিটন পুলিশ কমিশনারের নেতৃত্বে ও তত্ত্বাবধানে বাসন থানার অফিসার ইনচার্জ মোহাম্মদ মালেক খসরু খানের দায়ীত্বে কঠোর লকডাউন ও জঙ্গিবাদ, সন্ত্রাস, মাদক, বাল্য বিবাহ, শিশু অপহরনকারী, ইভটিজিং, গুজব ও অপপ্রচার সহ যে কোন অপরাধ চাঁদাবাজি কিশোর গ্যাং নির্মূল বাস্তবায়নে কাজ করছেন।

সাংবাদিকদের বাসন থানার ওসি জানান, গাজীপুর মেট্রোপলিটন পুলিশ কমিশনারের নেতৃত্বে ও তত্ত্বাবধানে বাসন থানায় আমরা মাইকিং করে জন-সাধারণ কে জনসচেতনতা বৃদ্ধির জন্য বলেছি। যাদের মাস্ক ছাড়া রাস্তায় দেখেছি তাদের মাঝে মাস্ক বিতরণ করেছি। সেই সাথে সকলকে নিরাপদে থাকার জন্য বলেছি। বাসন থানার অফিসার ইনচার্জ মোঃ মালেক খসরু খান আরো বলেন সন্ত্রাস, চাঁদাবাজি, ইভটিজিং, কিশোর গ্যাং, নির্মূলে থানার সকল কর্মকর্তা কাজ করে যাচ্ছি। আপনারা যখন যেখানে এসব পরিস্থিতিতে পরবেন সাথে সাথে আমাদের জানাবেন আমরা তা শক্ত হাতে প্রতিহত করবো বলে ওসি জানান। এদিকে সরকার ঘোষিত গেল১ জুলাই থেকে ৭ দিনের কঠোর লকডাউন বাস্তবায়নে মাঠে কাজ করছে পুলিশসহ আইনশৃঙ্খলা বাহিনী।অধিকাংশ বলেন করোনাভাইরাস একটি বৈশ্বিক মহামারী। এ ভাইরাস মোকাবেলায় আমরা মাঠে কাজ করছি। মানুষকে ঘরে রাখার জন্য আমাদের পুলিশ বাহিনীবাহিনী সহ আইনশৃঙ্খলা বাহিনী রাতদিন কাজ করে যাচ্ছেন। সকল ধরনের দোকানপাট যাতে বন্ধ রাখা হয় এবং অতি জরুরি প্রয়োজন ছাড়া যাতে মানুষ বাইরে বের হয়ে না আসে, আর একান্তই যদি বের হতে হয় তাহলে যেন মাছ পরিধান করে বের হয় সে বিষয়ে মানুষকে উদ্বুদ্ধকরণে আমরা কাজ করে যাচ্ছি।

ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মালেক খসরু বলেন, করোনার এই মহামারী কালে কিছু স্বার্থান্বেষী মহল সন্ত্রাস চাদবাজীর মাধ্যমে তাদের আখের গোছাতে চায়। মাননীয় পুলিশ কমিশনারের নেতৃত্বে সে বিষয়ে ও আমরা সজাগ রয়েছি।মাদক সন্ত্রাস চাঁদাবাজি নির্মূলে আমরা কাজ করে যাচ্ছি।সুতরাং অপরাধ করে কেউ যাতে পারে না পায় সে বিষয়ে আমরা সচেষ্ট রয়েছি। উল্লেখ্য সম্প্রতি পদোন্নতি পেয়ে জিএমপির বাসন থানায় ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা হিসেবে যোগদান করেন। ইতিপূর্বে জিএমপির গাছা থানায় ওসি তদন্ত হিসেবে কর্মরত ছিলেন চৌকস এই পুলিশ অফিসার। বাসন থানায় ওসি হিসেবে যোগদান করে আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে রাখার লক্ষ্যে তিনি সকলের সহযোগিতা কামনা করেন।